গ্রাফিক্স ডিজাইন কিভাবে শিখবো, টিটোরিয়াল

গ্রাফিক্স ডিজাইন এর কাজ গুলো কি কি

0

ভূমিকা: গ্রাফিক্স ডিজাইন হচ্ছে এমন একটি শিল্প যেখানে পেশাদারগণ তৈরি করেন দৃশ্যমান বিষয়বস্তু যেটি সহজে দৃষ্টি আকর্ষন, বার্তা আদান প্রদানের জন্য সেতু হিসেবে কাজ করে।

 

প্রিন্ট ও অনলাইন মিডিয়ায় কাজ করেন এমন অনেকে অল্পস্বল্প ডিজাইন করতে পারেন। ছবি এডিট করতে জানেন। আবার অনেকে মোবাইল ও কম্পিউটারে শখের বসে অ্যাপস দিয়ে ছবি এডিট,ইমেজ এডিট কিংবা আঁকাঝুকা করেন। এদের কাউকে কিন্ত গ্রাফিক্স ডিজাইনার বলা যাবে না।এ সব কাজ করে অনলাইন ইনকাম করা যাবে না। কম্পিউটার জানা আর কোর্স করে প্রফেশনাল কম্পিউটার প্রশিক্ষণ গ্রহণ( অফিস কোর্স মূলত:) সম্পূর্ণ ভিন্ন। কোথাও ভাল চাকরির জন্য  সাক্ষাতকার দিতে গেলে, কম্পিউটারের কি কি প্রোগ্রাম জানেন জানতে চাইবে। কোন প্রতিষ্টানে শিখেছেন কি না ? তাও ।গ্রাফিক্স ডিজাইন এর আদ্যেপান্ত প্রাকটিক্যাল জানেন এমন দক্ষ ও অভিজ্ঞ ব্যক্তিকে গ্রাফিক্স ডিজাইনার বলা যাবে।

 

গ্রাফিক্স ডিজাইন কি ?

আপনার আইডিয়াকে অধিক আকর্ষনীয় করে তোলার জন্য সাজানোগোছানো রং দিয়ে তৈরি করা ছবিই হল এক প্রকার গ্রাফিক্স ডিজাইন। যিনি গ্রাফিক্স ডিজাইন শিখতে আগ্রহী তার কাছে কি , কাকে বলে  এ সব মূখ্য না। তিনি জানেন, বুঝেন এবং কাজটার আর্থিকগুরুত্ব বুঝতে পারেন বলেই প্রফেশনালভাবে গ্রাফিক্স ডিজাইন বিষয়ে ক্যারিয়ার গড়তে চান। শিখতে চান। আউটসোসিং ওয়ে কাজ করে গ্রাফিক্স ডিজাইন  এ দক্ষ একজন ফ্রিল্যান্সার প্রতিমাসে অনেক টাকা অনলাইনে আয় করতে পারেন।

একজনের ধারণা, কল্পনাকে বাস্তবিক রূপ দিতে, লেখা,ছবি,রং এবং ফরম্যাট ব্যবহার করে যা কিছু দৃশ্যমান তৈরি করা হয় তাই হল  গ্রাফিক্স ডিজাইন  । সে জন্য গ্রাফিক্স ডিজাইন  করার কোন একটি নিদিষ্ট পদ্ধতি নেই। অনেক ধরনের পথে গ্রাফিক্স ডিজাইন  করা যায়, একেক জন একেকটি পদ্ধতির এক্সপার্ট।কেউ লোগো বানাতে বেশ পটু। কেউ বা ভিডিও এডিটিং করতে দক্ষ। গ্রাফিক্স ডিজাইন  বিষয়টি অনেক বড়। এটির শাখা প্রশাখায় মানুষ কাজ করছে। সবাই সব কাজ করতে পারেন না। সে জন্য গ্রাফিক্স ডিজাইন  কি ? সেটার এক কথায় কোন উত্তর আপনি দিতে পারবেন না।

গ্রাফিক্স ডিজাইন  কাকে বলে?

 

ফটোশপ, ইলাস্ট্রেটরসহ নানা সফ্টওয়্যার ব্যবহার করে চিন্তা চেতনা,অভিজ্ঞতা স্টাটিসটিক্স(পরিসংখ্যান, ডাটা) দিয়ে সাদাকালো ও যে রং বেরংয়ের শৈল্পিক চিত্র(রিপোর্ট, নকশা ) বানায় তাকে গ্রাফিক্স ডিজাইন  এবং কাজটি যিনি করেন তাকে গ্রাফিক্স ডিজাইনার বলা হয়।

সবাই গ্রাফিক্স ডিজাইনার যদিও, প্রত্যেকের আলাদা আলাদা সফটওয়ারের ওপর বিশেষ দক্ষতা ও কৌশল থাকে। যার ফলে একেক একজন একেক একটি বিষয়ের ওপর সেরামানের ডিজাইনার হিসেবে পরিচিতি পান।গ্রাফিক্স শিল্পটি দিন দিন পরিবর্তিত ও উন্নতর হচ্ছে।চাকরি বা ব্যবসার খাতিরে ডিজাইনারদের নতুন নতুন টুলস ও কৌশলের সাথে নিজেদের খাপ খাইয়ে কাজ করতে হচ্ছে। কারণ গ্রাহক সব সময় নতুন কিছু চান, অন্যজনের চেয়ে আরেকটু সুন্দর, আরো আকর্ষনীয় ডিজাইন দাবি করেন। শুরুতেই বলে ফেলেন গ্রাহক, আপনার কাছে এসেছি নতুন কিছু পাবার জন্য।

গ্রাফিক ডিজাইন  এর  ইতিহাস :

গ্রাফিক ডিজাইন একটি প্রাচীন কারুকাজ। এটির ইতিহাস ১৭হাজার বছরের পুরানো। প্রাচীণ মিশরের গুহায় বসে এমনসব কারুকাজ করা হত। প্রাচীণ আমল হতে বাংলার নারীরা হাতের নক্সিকাথা ও বিভিন্ন তৈরি ডিজাইনও আজ

বিভিন্ন সফওয়ারের মাধ্যমে করা হচ্ছে। ১৯২০সালে মার্কিন মুল্লুকে প্রিন্টিং শিল্পে প্রথম গ্রাফিক্স ব্যবহার করা  হয়। তৈরি হয় লোগো।সে সময় গ্রাফিক্সকে আপিল এবং মার্কেটিং জন্য ব্যবহার করা হত। ধীরে ধীরে সেটি দর্শনার্থীদের মধ্যে খুব জনপ্রিয়তা লাভ করতে শুরু করে।

৮ প্রকারের গ্রাফিক্স ডিজাইন :

গ্রাফিক্স ডিজাইন এর কাজ গুলো কি কি

আপনি যদি আপনার ব্যবসা প্রতিষ্টানের মার্কেটিং সংক্রান্ত কাজের জন্য একজন ভাল দক্ষ ও অভিজ্ঞতা সম্পন্ন গ্রাফিক্স ডিজাইনার খুঁজেন তাহলে আপনি নিচের আট ক্যাটাগরির যে কোন একজন ডিজাইনারকে বেছে নিতে নিতে পারেন। আপনার চাহিদার সাথে যে ক্যাটাগরির দক্ষ ডিজাইনারের কাজ মিলে যাবে তাকে আপনি পছন্দ করতে পারেন। বা সে রকম কাজের জন্য অভিজ্ঞ ডিজাইনার(ফ্রিল্যান্সার) চেয়ে বিজ্ঞাপন দিতে পারেন। খুঁজতে পারেন বিভিন্ন ফ্রিল্যান্সিং জব সাইটগুলোতে।

১. ভিজ্যুয়াল ব্রান্ড আইডেনটিটি গ্রাফিক্স ডিজাইন/ব্রান্ডিং ডিজাইন

একটি ব্যবসা, ব্যবসা প্রতিষ্টান এবং তার ক্রেতাসাধারণ, সেবা গ্রহিতাদের মধ্যে উচ্চ ভাল ধারণা সম্পর্কীত চমৎকার সম্পর্কই হল ব্রান্ড। ব্রান্ড আইটেম মানে গুণগতমান, পরিমাণ এবং স্থায়িত্ব ও টেকসইয়ের ব্যাপারে কোন প্রশ্ন নেই। চোখ বুঝে কেনা যায়। দামও থাকে ফিক্সড। একদর। ভিজুয়্যল আইডেনটিটি গ্রাফিক্স ডিজাইনও তেমন। ভিজ্যুয়াল উপাদানগুলি ব্র্যান্ডের চেহারাকে চিত্র, আকার এবং রঙের মাধ্যমে ফুটিয়ে তোলে।

ভিজ্যুয়াল ব্রান্ড আইডেনটিটি গ্রাফিক্স ডিজাইন/ব্রান্ডিং ডিজাইন করার জন্য দরকার দক্ষ গ্রাফিক্স ডিজাইনার। যিনি একটি গ্রুপ বা কোম্পানীর লোগো, লেখার স্টাইল, রং, প্লেটস এবং ছবি ব্যবহার করে সেই প্রতিষ্টানের জন্য প্যাড, নোট বুক, ক্যালেন্ডার, মগ প্রিন্ট, ওয়ালেট প্রিন্ট, ডায়েরি ছাপান, তখন এটি কোম্পানীর ব্রান্ডিং কাজ করা হয়। এখানে ডিজাইনার কোম্পানীর ব্রান্ড ডিজাইনার হিসেবে প্রতিনিধিত্ব করেন।
outsourcingway-branding a company

( উপরের ছবিতে দেখা যাচ্ছে একটি কোম্পানীর নোট প্যাড, প্যাড, খাম, ক্যালেন্ডার একই লোগো দিয়ে ছাপানো হয়েছে। এ সব ব্রান্ডিং এর অংশ।)

ডিজাইনাররা যা ভিজ্যুয়াল আইডেন্টিফিকেশন গ্রাফিক ডিজাইনে অভিজ্ঞ, ব্র্যান্ডের অংশীদারদের সাথে লোগো, টাইপোগ্রাফি, রঙ প্যালেট এবং চিত্র লাইব্রেরির মতো সম্পদ তৈরি করতে সহায়তা করে যা ব্র্যান্ডের অভিব্যক্তিত্বকে উপস্থাপন করে থাকে। স্ট্যান্ডার্ড বিজনেস কার্ড এবং কর্পোরেট স্টেশনারি ছাড়াও ডিজাইনাররা প্রায়শই ভিজ্যুয়াল ব্র্যান্ডের নির্দেশিকা (স্টাইল গাইড) এর একটি সেট প্রকাশ করেন যা পরবর্তী সময়ে চলতে থাকে। এই নির্দেশিকা ভবিষ্যতের অ্যাপ্লিকেশন জুড়ে ব্র্যান্ডের ধারাবাহিকতা নিশ্চিত করতে সহায়তা করে।

ব্রান্ডিং কোম্পানী

ভিজ্যুয়াল আইডেন্টিটি ডিজাইন অন্যতম সাধারণ ধরণের ডিজাইন। সমস্ত ভিজ্যুয়াল মিডিয়া জুড়ে উপযুক্ত ডিজাইনের উপাদান তৈরি করতে ভিজ্যুয়াল আইডেন্টিটি গ্রাফিক ডিজাইনারদের অবশ্যই সমস্ত ধরণের গ্রাফিক ডিজাইনের একটি সাধারণ জ্ঞান থাকতে হবে। তাদের দুর্দান্ত যোগাযোগ, ধারণাগত এবং সৃজনশীল দক্ষতা এবং শিল্প, সংস্থাগুলি, প্রবণতা এবং প্রতিযোগীদের গবেষণা করার অনুরাগেরও প্রয়োজন।

 

উদাহারণ স্বরুপ :

ডিজাইনাররা যা ভিজ্যুয়াল আইডেন্টিফিকেশন গ্রাফিক ডিজাইনে অভিজ্ঞ, ব্র্যান্ডের অংশীদারদের সাথে লোগো, টাইপোগ্রাফি, রঙ প্যালেট এবং চিত্র লাইব্রেরির মতো সম্পদ তৈরি করতে সহায়তা করে

. মার্কেটিং এবং এডভারটাইজিং গ্রাফিক্স ডিজাইন
যখন কোন লোক গ্রাফিক্স ডিজাইনের কথা ভাবেন, তখন তারামার্কেটিং ও এডভারটাইজিংয়ের চিন্তা মাথায় রেখেই কাজ(ডিজাইন) করেন।

প্রতিষ্টানসমূহ ভোক্তাদের চাহিদা ও প্রতিক্রিয়ার ওপর ভিত্তি করে বিপণনের কৌশলগুলি অবলম্বন করে থাকে।

দুর্দান্ত বিপণন একটি পণ্য, পরিষেবা বা ব্র্যান্ড সম্পর্কে তাদের যে চাহিদা, প্রয়োজন, সচেতনতা এবং তৃপ্তির উপর ভিত্তি করে লোককে জড়িত করে। যেহেতু লোকেরা সবসময় ভিজ্যুয়াল সামগ্রীকে আরও আকর্ষক মনে করবে, গ্রাফিক ডিজাইন সংগঠনগুলিকে আরও কার্যকরভাবে প্রচার এবং যোগাযোগ করতে সহায়তা করে।

বিপণনের ডিজাইনাররা বিপণনের কৌশলগুলির জন্য সম্পদ তৈরি করতে প্রতিষ্টানসমূহের মালিক, পরিচালক,  বা বিপণন পেশাদারদের সাথে কাজ করে থাকেন। তারা একা বা অভ্যন্তরীণ বা সৃজনশীল দলের অংশ হিসাবে কাজ করতে পারে। ডিজাইনারগণ নির্দিষ্ট ধরণের মিডিয়াতে (বিশেষত যানবাহনের মোড়ক বা ম্যাগাজিনের বিজ্ঞাপনগুলি) চমৎকারভাবে সাজাতে পারেন। গ্রাফিক্স ডিজাইন মাকেটিং এবং এডভারটাইজিংকে ডিজিটাল রুপ দিয়ে অনেক বেশি ভোক্তা বা ব্যবহারকারী আকর্ষন করতে সক্ষম হন।

উদাহারণ :

  • পোস্টকার্ডস এবং লিফলেট
  • ম্যাগাজিন ও সংবাদপত্রের বিজ্ঞাপন
  • পোস্টার, ব্যানার এবং বিলবোর্ড
  • ইনফোগ্রাফিক্স
  • ব্রোশিয়ার (প্রিন্ট ও ডিজিটাল)
  • যানবাহনের বহি আবরণে লাগানো স্টিকার
  • স্বাক্ষর ও ট্রেড শো প্রদর্শন
  • ইমেইল মার্কেটিং টেমপ্লেট
  • পাওয়ার পয়েন্ট প্রেজেন্টেশন
  • মেন্যু
  • সোশ্যাল মিডিয়া এড,ব্যানার এবং গ্রাফিক্স
  • ব্যানার এবং নতুন লক্ষে বিজ্ঞাপন বানানো
  • ব্লগ ও ওয়েবসাইটের জন্য ছবি বা ইমেজ তৈরি

৩. ইউজার ইন্টারফেস গ্রাফিক ডিজাইন/ওয়েব ডিজাইন

একটি ব্যবহারকারী ইন্টারফেস (ইউআই) হল কীভাবে কোনও ব্যবহারকারী কোনও ডিভাইস বা অ্যাপ্লিকেশনটির সাথে কি রকম আচরণ করে। ইউআই ডিজাইন হ’ল ইন্টারফেসগুলি ডিজাইন করার প্রক্রিয়া যা তাদের ব্যবহার সহজ করে তোলে এবং ব্যবহারকারীর ব্যবহার বান্ধব অভিজ্ঞতা জানান দেয়।

একটি ইউআইতে ব্যবহারকারী  অল স্ক্রিন, কীবোর্ড এবং মাউস  এর সাথে সম্পৃক্ত থাকা সমস্ত কিছু অন্তর্ভুক্ত করে তবে গ্রাফিক ডিজাইনের প্রসঙ্গে ইউআই ডিজাইনটি ব্যবহারকারীর দৃষ্টিভঙ্গি এবং অন-স্ক্রীন গ্রাফিক উপাদানগুলির বোতাম, মেনু, মাইক্রো এর নকশাকে কেন্দ্র করে অন্তর্ভুক্তি এবং আরও অনেক কিছু। প্রযুক্তিগত কার্যকারিতা সহ নান্দনিক আবেদনকে ভারসাম্য জানানো ইউআই ডিজাইনারের প্রধান কাজ।

ইউআই ডিজাইনাররা ডেস্কটপ অ্যাপস, মোবাইল অ্যাপস, ওয়েব অ্যাপ্লিকেশন এবং গেমগুলিতে বিশেষীকরণ করে। তারা ইউএক্স (ব্যবহারকারীর অভিজ্ঞতা) ডিজাইনারদের (যারা অ্যাপটি কীভাবে কাজ করে তা নির্ধারণ করে) এবং ইউআই বিকাশকারীদের (যারা এটিকে কাজ করার জন্য কোড লেখেন) এর সাথে নিবিড়ভাবে কাজ করেন।

ইউআই ডিজাইনারদের অবশ্যই সেরা গ্রাফিক ডিজাইন দক্ষতা এবং ইউআই / ইউএক্স নীতিগুলির একটি দুর্দান্ত বোঝাপড়া, প্রতিক্রিয়াশীল নকশা এবং ওয়েব বিকাশ উভয়কেই সমর্থনযুক্ত টিম চালনার যোগ্যতা থাকতে হবে। গ্রাফিক্স অ্যাপ্লিকেশনগুলির পাশাপাশি, তাদের এইচটিএমএল, সিএসএস এবং জাভাস্ক্রিপ্টের মতো প্রোগ্রামিং ভাষার জ্ঞান থাকা প্রয়োজন।

থিম-ওয়েব পেজ -ডিজাইন

উদাহারণ  :

ওয়েব ডিজাইন- আউটসোর্সিংওয়ে

  • ওয়েব পেজ ডিজাইন
  • থিম ডিজাইন (WordPress, Shopify, etc.)
  • গেম মুখপত্র(interface)
  • অ্যাপ ডিজাইন

৪. প্রকাশনা সংশ্লিষ্ট গ্রাফিক্স ডিজাইন

প্রকাশনা সংস্থাগুলো দীর্ঘ সময়ধরে ক্রেতাদের সাথে সরাসরি সম্পর্কিত। প্রকাশনা সংস্থাগুলো

একটি ধ্রুপদী ধরণের ডিজাইন — থিং বই, সংবাদপত্র, ম্যাগাজিন এবং ক্যাটালগগুলি ছাপে। তবে সম্প্রতি ডিজিটাল প্রকাশনা উল্লেখযোগ্যভাবে বৃদ্ধি পেয়েছে।

গ্রাফিক ডিজাইনারগুলি যা প্রকাশনাগুলিতে বিশেষজ্ঞ, তারা সম্পাদক এবং প্রকাশকদের সাথে যত্ন সহকারে নির্বাচিত টাইপোগ্রাফি এবং সহকর্মী আর্টওয়ার্ক সহ লেআউট তৈরি করতে কাজ করে, যার মধ্যে ফটোগ্রাফি, গ্রাফিক্স এবং চিত্র অন্তর্ভুক্ত রয়েছে। প্রকাশনা ডিজাইনাররা ফ্রিল্যান্সার্স হিসাবে সৃজনশীল সংস্থার সদস্য হিসাবে বা ইন-হাউজ কোনও প্রকাশনা সংস্থার অংশ হিসাবে কাজ করতে পারে।

প্রকাশনা সংশ্লিষ্ট গ্রাফিক্স ডিজাইন

উদাহারণ :

  • বই
  • সংবাদপত্র
  • নিউজ লেটার
  • ডাইরেক্টরি
  • বার্ষিক রিপোর্ট
  • ম্যাগাজিন
  • ক্যাটালগ

প্রকাশনা সংস্থার ডিজাইনারদের অবশ্যই সেরা যোগাযোগ, বিন্যাস এবং সাংগঠনিক দক্ষতা থাকতে হবে। গ্রাফিক ডিজাইনের দক্ষতার পাশাপাশি তাদের রঙ পরিচালনা, মুদ্রণ এবং ডিজিটাল প্রকাশনাও ভাল বুঝতে হবে।

৫. প্যাকেজিং  গ্রাফিক্স ডিজাইন

বেশিরভাগ পণ্যগুলিকে সঞ্চয় এবং বিতরণ এবং বিক্রয়ের জন্য তাদের সুরক্ষা এবং প্রস্তুত করতে কিছু প্যাকেজিংয়ের প্রয়োজন হয়। তবে প্যাকেজিং ডিজাইনটি গ্রাহকদের সাথে সরাসরি যোগাযোগ করতে পারে, যা এটিকে একটি অত্যন্ত মূল্যবান বিপণনের সরঞ্জাম হিসাবে তৈরি করে। প্রতিটি বাক্স, বোতল এবং ব্যাগ, প্রতিটি ক্যান, ধারক বা ক্যানিস্ট একটি ব্র্যান্ডের চেহারা ফুটিয়ে তোলে।
 পণ্যগুলিকে সঞ্চয় এবং বিতরণ এবং বিক্রয়ের জন্য তাদের সুরক্ষা এবং প্রস্তুত করতে কিছু প্যাকেজিংয়ের প্রয়োজন হয়। তবে প্যাকেজিং ডিজাইনটি

প্যাকেজিং ডিজাইনাররা ধারণা তৈরি করে, মকআপগুলি বিকাশ করে এবং কোনও পণ্যের জন্য মুদ্রণ-প্রস্তুত ফাইল তৈরি করে। এর জন্য মুদ্রণ প্রক্রিয়াগুলির বিশেষজ্ঞ জ্ঞান এবং শিল্প নকশা এবং উত্পাদন সম্পর্কে গভীর ধারণা প্রয়োজন।

প্যাকেজিং গ্রাফিক্স ডিজাইন

 

৬. মোশন গ্রাফিক্স ডিজাইন/ এনিমেশন ডিজাইন

সহজ কথায় বলতে গেলে, মোশন গ্রাফিক্সগুলি গ্রাফিক্স যা চলমান। এর মধ্যে অ্যানিমেশন, অডিও, টাইপোগ্রাফি, চিত্রাবলী, ভিডিও এবং অন্যান্য প্রভাবগুলি অন্তর্ভুক্ত থাকতে পারে যা অনলাইন মিডিয়া, টেলিভিশন এবং ফিল্মে ব্যবহৃত হয়। প্রযুক্তির উন্নতি এবং ভিডিও কন্টেন্ট প্রধান হওয়ার সাথে সাথে সাম্প্রতিক বছরগুলিতে  অ্যানিমেশন জনপ্রিয়তা আকাশচুম্বী।

“মোশন গ্রাফিক্স ডিজাইনার” ডিজাইনারদের জন্য কিছুটা নতুন বৈশিষ্ট্য। সাধারণত টিভি ও চলচ্চিত্রের জন্য সংরক্ষিত, প্রযুক্তিগত অগ্রগতি উত্পাদন সময় এবং ব্যয় হ্রাস করেছে, যা শিল্পের ফর্মটিকে আরও অ্যাক্সেসযোগ্য এবং সাশ্রয়ী করে তুলেছে। এখন, গতি গ্রাফিক্স একটি নতুন ধরণের ডিজাইনের একটি এবং এটি সমস্ত ডিজিটাল প্ল্যাটফর্মগুলিতে পাওয়া যায়, যা সমস্ত প্রকারের নতুন ক্ষেত্র এবং সুযোগ তৈরি করেছে।

মোশন গ্রাফিক্স ডিজাইন

যেমন :

  • শিরোনাম ক্রম এবং সমাপ্ত ক্রেডিট
  • এডভারটাইজমেন্ট
  • এনিমেটেড লোগো
  • ট্রেইলার
  • উপস্থাপন
  • প্রমোশনাল ভিডিও
  • টিটোরিয়াল ভিডিও
  • ওয়েবসাইট
  • অ্যাপস
  • ভিডিও গেমস
  • ব্যানার
  • জিআইএফ

৭. পারিপার্শ্বিক গ্রাফিক্স ডিজাইন

পরিবেশগত গ্রাফিক্স ডিজাইন স্থানগুলিকে স্থানগুলিকে আরও স্মরণীয়, আকর্ষণীয়, তথ্যমূলক বা নেভিগেট করা সহজ করে তাদের সামগ্রিক অভিজ্ঞতা উন্নত করতে দৃশ্যগুলিতে স্থানগুলিতে সংযুক্ত করে। পরিবেশগত নকশা একটি বিস্তৃত নকশা, এখানে কিছু উদাহরণ রয়েছে:

উদাহারণ স্বরুপ:

পরিবেশগত গ্রাফিক্স ডিজাইন স্

  • স্বাক্ষর
  • দেয়াল অংকন (Wall murals)
  • Museum exhibitions
  • অফিস ব্রান্ডিং
  • যানবাহনের দিক প্রদর্শন নির্দেশিকা
  • খুচরা স্টোরের ইন্টেরিয়র
  • স্টেডিয়াম ব্রান্ডিং
  • ইভেন্ট এন্ড কনফারোন হল সাজানো

ওয়াইফাইন্ডিং একটি নির্দিষ্ট ধরণের পরিবেশগত গ্রাফিক ডিজাইন যা কৌশলগত স্বাক্ষর, ল্যান্ডমার্কস এবং ভিজ্যুয়াল ইঙ্গিতগুলি নিয়ে গঠিত যা লোকেরা কোথায় এবং কোথায় তাদের যেতে হবে সেগুলি সনাক্ত করতে সহায়তা করে যাতে তারা কোনও বিভ্রান্তি ছাড়াই সেখানে যেতে পারে।

গ্রাফিক্স ডিজাইন এর কাজ গুলো কি কি

এনভায়রনমেন্টাল গ্রাফিক ডিজাইন গ্রাফিক, আর্কিটেকচারাল, ইন্টিরিওর, ল্যান্ডস্কেপ এবং শিল্প নকশাকে মার্জ করে এমন একটি বহুমাত্রিক অনুশীলন। ডিজাইনাররা তাদের ডিজাইনগুলি পরিকল্পনা এবং বাস্তবায়নের জন্য এই ক্ষেত্রগুলির যে কোনও সংখ্যক লোকের সাথে সহযোগিতা করে। যে কারণে ডিজাইনারদের সাধারণত গ্রাফিক ডিজাইন এবং আর্কিটেকচার উভয় ক্ষেত্রেই শিক্ষা এবং অভিজ্ঞতা থাকে। তাদের অবশ্যই শিল্প নকশার ধারণার সাথে পরিচিত হতে হবে এবং স্থাপত্য পরিকল্পনাগুলি পড়তে এবং স্কেচ করতে সক্ষম হবে।

৮. গ্রাফিক ডিজাইনের জন্য শিল্প ও চিত্রণ( Art and illustration for graphic design)

গ্রাফিক আর্ট এবং চিত্রগুলি প্রায়শই গ্রাফিক ডিজাইনের সমতুল্য হিসাবে দেখা যায়, তবে সেগুলি প্রতিটি একেবারেই আলাদা। ডিজাইনারগণ যোগাযোগ ও সমস্যাগুলি সমাধানের জন্য রচনাগুলি তৈরি করে, গ্রাফিক শিল্পী এবং চিত্রকরগণ মূল শিল্পকর্ম তৈরি করে। তাদের শিল্প সূক্ষ্ম শিল্প থেকে শুরু করে গল্প বলার চিত্রগুলিতে অনেকগুলি রূপ নেয়।

গ্রাফিক আর্ট এবং ইলাস্ট্রেশন প্রযুক্তিগতভাবে গ্রাফিক ডিজাইনের ধরণের না হলেও গ্রাফিক ডিজাইনের প্রেক্ষাপটে বাণিজ্যিক ব্যবহারের জন্য এত কিছু তৈরি করা হয়েছে যে আপনি অন্যগুলি ছাড়া কোনও বিষয়ে কথা বলতে পারবেন না।

গ্রাফিক ডিজাইনের জন্য শিল্প ও চিত্রণ( Art and illustration for graphic design)

উদাহারণ স্বরুপ:

  • টি শার্ট ডিজাইন
  • টেক্সটাইলের জন্য গ্রাফিক নিদর্শন
  • মোশন গ্রাফিক্স
  • স্টক ফটো
  • চিত্র উপন্যাস
  • ভিডিও গেমস
  • ওয়েবসাইট
  • কমিক বই
  • আর্ট এলবাম
  • বই কভার
  • ছবির বই
  • ইনফোগ্রফিক্স
  • Technical illustration
  • কনসেপ্ট আর্ট(Concept art)

• কনসেপ্ট আর্ট(Concept art)

গ্রাফিক শিল্পীরা তাদের কাজ তৈরি করতে মিডিয়া এবং কৌশলগুলির যে কোনও সংমিশ্রণ ব্যবহার করেন কারণ তারা লেখক, সম্পাদক, পরিচালক, বিপণনকারী এবং সমস্ত গ্রাফিক ডিজাইনের ধরণের জুড়ে আর্ট ডিরেক্টরদের সাথে সহযোগিতা করে। তাদের প্রায়শই চারুকলা, অ্যানিমেশন বা আর্কিটেকচারে একটি ভিত্তি থাকে। ওভারল্যাপিং দক্ষতা এবং অ্যাপ্লিকেশনগুলি গ্রাফিক ডিজাইনার যারা গ্রাফিক শিল্পী এবং চিত্রকর (এবং তদ্বিপরীত) হিসাবেও কাজ করে তাদের সন্ধান করা সম্ভব করে।

মোবাইল দিয়ে গ্রাফিক্স ডিজাইন

গ্রাফিক ডিজাইন একটি ক্রমবর্ধমান ক্ষেত্র এবং বিশেষায়িত এবং দক্ষ ডিজাইনারের চাহিদা ক্রমশ বাড়ছে।

আপনি যখন ডিজাইনের কাজটি গ্রহণের জন্য সঠিক ব্যক্তির সন্ধান করছেন, তখন বিভিন্ন ধরণের গ্রাফিক্স ডিজাইন জেনে আপনাকে আপনার প্রয়োজনীয় বিশেষজ্ঞ সনাক্ত করতে সহায়তা করবে।

বিশ্বব্যাপী গ্রাফিক্স ডিজাইনারের ব্যাপক চাহিদা, অধিক অনলাইন ইনকাম,ঘরে বা সুবিধাজনক স্থানে বসে কাজ করার সুযোগ এবং নতুন নতুন শিল্পকর্ম তৈরির সম্ভাবনা থাকায় বেশিরভাগ নবাগত ফ্রিল্যান্সার এই কাজটি শিখতে চান। বর্তমান সময়ে মোবাইলে নানা রকম অ্যাপস দিয়ে ভিডিও, ছবি এডিটিং, ইমেজ তৈরি করে মোবাইল দিয়ে গ্রাফিক্স ডিজাইন করা যায়। অনেকে সুন্দর সুন্দর ভিডিও ও এনিমেশন তৈরি করছেন। মোবাইল দিয়ে এডিট করা ভিডিও অনলাইন চ্যানেলে নিত্যদিন সম্প্রচার হচ্ছে।

 

কিভাবে শিখবো গ্রাফিক্স ডিজাইন?

গ্রাফিক্স ডিজাইনার হিসেবে আপনি নিজেকে গড়ে তুলতে চাইলে বা এটাকে ক্যারিয়ার হিসেবে নিতে চাইলে আপনাকে ও লেভেল, সেকেন্ডারি স্কুল সার্টিফিকেট(এসএসসি) বা সমমানের লেখাপড়ার যোগ্যতা থাকতে হবে।কারণ অল্পস্বল্প লেখালেখি, পড়তে জানা,যোগাযোগ করার সামর্থ্য, ড্রয়িং করার খুব আগ্রহ থাকতে হবে। আপনি আর্টসের ছাত্র হলেও পারবেন। কেবল ধৈর্য্য ধরে কাজটা শিখতে হবে।

বাংলাদেশের সর্বত্র এখন গ্রাফিক্স ডিজাইন শিখানো হয়। সরকারি বা বেসরকারি প্রতিষ্টানে ৬-১২মাসের ডিপ্লোমা করেন।সরকারি সার্টিফিকেট কাজে লাগবে যখন ফ্রিল্যান্সিং ওয়েবসাইটগুলোতে অনলাইন ইনকাম করার লক্ষে কাজ করতে যাবেন।

বিশ্বব্যাপী প্রতিযোগিতা করে কাজ আদায় করে  অনলাইনে আয় করতে হলে ভালভাবে গ্রাফিক্স ডিজাইন শিখতে হবে। যে সব কাজ সহজে করতে পারবেন, আপনার আগ্রহ আছে সে গুলো ভাল করে শিখুন। গ্রাফিক্স এর কাজ জানলে অর্ডারের অভাব হবে না। যারা কাজ জানে না, তারাই অর্ডার পায় না।

গ্রাফিক্স ডিজাইন কোর্স :

রাজধানী ঢাকাসহ সারাদেশে ছোট বড় প্রতিষ্টানে এই কোর্স করতে পারেন।  সরকারি ও বেসরকারি প্রতিষ্টানে ৩/৬/মাস বা একবছরের ডিপ্লোমা করার সুযোগ রয়েছে। এই কোর্স করে নিজেকে নিশ্চিত আয়ের জন্য প্রস্তুত রাখুন। কেবল ধৈর্য্য করে প্রশিক্ষণ গ্রহণ করতে হবে।

 

গ্রাফিক্স ডিজাইন শিখতে কত দিন লাগে

বন্ধুরা আমি আগেই বলেছি, ৬-১২মাসের একটি ডিপ্লোমা কোর্স করতে পারলে আপনি পুরোপুরি এক্সপার্ট হয়ে কাজ শুরু করতে পারবেন। বাংলাদেশ কম্পিউটার কাউন্সিলে সাড়ে ৮হাজার টাকায় ৩মাসের এই শর্ট কোর্সটি করতে পারেন-Graphics Design & Multimedia (Animation, Audio & Video Editing, Photo Editing)। এই কোর্স নারীদের ৫হাজার টাকায় করার সুযোগ রয়েছে সেখানে। যোগাযোগের ঠিকানা : http://bkiict.bcc.net.bd/admission

 

গ্রাফিক্স ডিজাইন শিখতে কি কি সফটওয়্যার দরকার?

 

০১. এডোব ইলাসস্ট্রেটর

০২.  এডোব ফটোশপ

০৩.এডোব ইন ডিজাইন

০৪.এডোব লাইটরুম

০৫.কোরেলড্র

০৬. কোয়ার্কএক্সপ্রেস শিখতে পারেন।

সাধারণ থেকে শুরু করে এডভান্স লেভেলের গ্রাফিক্স ডিজাইন এর কাজ করতে পারবেন উপরের সফটওয়ারগুলো দিয়ে।

গ্রাফিক্স ডিজাইন করে কত টাকা আয় করা যায়

রাজধানী ঢাকার বাংলাবাজার বা যে কোন প্রেস বা প্রিন্টিং হাউসে ৬/৮ঘন্টা কাজ করে আপনি ২০/২৫হাজার টাকা, চট্টগ্রামের আন্দরকিল্লায় প্রতিমাসে ১২/১৫হাজার টাকা বেতনে চাকরি শুরু করতে পারেন। তাছাড়া টেক্সটাইল মিল, ইপিজেডের দেশি বিদেশি বড় বড় কোম্পানীতে ৫০হাজার থেকে ১লক্ষ টাকায় চাকরির সুযোগ রয়েছে। ফ্রিল্যান্সসিং জব সাইটগুলোতে এক মাস কাজ করলে তার চেয়েও বেশি আয়ের সম্ভাবনা রয়েছে। আপনার দক্ষতা ও অভিজ্ঞতার ওপর নির্ভর করছে আপনি কত আয় করতে পারবেন।

99designs

আপনি ডিজাইন ভিত্তিক ফ্রিল্যান্স জব সাইট নাইনটিনাইন ডিজাইন ভিজিট করে দেখুন। আপনার আয় সম্পকীয় চোখ খুলে যাবে। চোখ কপালেও উঠে যেতে পারে আয়ের অংক দেখলে। ভিজিট করুন-নাইনটিনাইন ডিজাইন

গ্রাফিক্স ডিজাইনের নীতিগুলি বিল্ডিং ব্লকের মতো। আপনি অবিশ্বাস্য কিছু তৈরি করার জন্য ভিত্তি না রেখে অবধি প্রতিটি একের পর এক স্তর রাখে আপনি লোগো, কোনও ওয়েবসাইট বা কোনও কাস্টম চিত্রের নকশা করছেন কিনা। আপনি যদি সমস্ত গ্রাফিক ডিজাইনের বেসিকগুলি নীচু করতে চান তবে আপনি সঠিক জায়গায় এসেছেন কারণ আমরা সেগুলি কভার করে রাখছি।

 

আপনার সমস্ত ডিজাইনের শিলাটি তৈরি করার জন্য আপনার কী কী জানতে হবে তা একবার দেখুন:

ক) স্পেস

খ) ভারসাম্য

গ) শ্রেণিবদ্ধতা

ঘ) লাইন এবং আকার

ঙ) রঙ

চ) টাইপোগ্রাফি

ছ) টেক্সার গঠন

জ) ব্র্যান্ডিং

ঝ) স্থান

 

আপনি কি জানেন যে আপনি যখন খুব সুন্দর, প্রশস্ত উন্মুক্ত স্থানে থাকবেন তখন আপনি যে শান্তিপূর্ণ বোধ পাবেন? ঠিক আছে, গ্রাফিক ডিজাইন একইভাবে কাজ করে।

ভারসাম্য এবং প্রান্তিককরণ:

এই পোস্টারের সমস্ত উপাদান সঠিকভাবে সুষম – যা ডিজাইনের সামগ্রিক প্রভাবকে যুক্ত করে। শ্বিনের পোস্টার ডিজাইন।

যখন এটি ডিজাইনের কথা আসে, আপনি অবশ্যই সৃজনশীল হতে পারেন, তবে আপনার ভারসাম্য বজায় রাখতে হবে। এটি এরকমভাবে ভাবুন: আপনি যদি নিজের বসার ঘরটি সাজাইয়া রাখছিলেন, তবে আপনি সোফা, পুনরায় টানা চেয়ার, কফির টেবিল এবং শেষ টেবিলগুলিকে একটি ছোট কোণে চেপে দেখার চেষ্টা করবেন না, তাই না? না, ভারসাম্য এবং প্রান্তিককরণ তৈরি করতে আপনি টুকরোগুলি সারা ঘরে জুড়েছিলেন। গ্রাফিক ডিজাইন সহ, এটি হুবহু একই।

হায়ারার্কি: স্থান এবং ভারসাম্য কীভাবে ব্যবহার করবেন তা আপনি সন্ধান করেছেন। তবে কীভাবে আপনি আপনার মূল উপাদানগুলির প্রতি দৃষ্টি আকর্ষণ করেন এবং নিশ্চিত হন যে আপনার বার্তাগুলি এলোমেলো হয়ে যায় না?

লাইন এবং আকার: লাইন এবং আকারগুলি আপনার নকশাগুলির ভিত্তি তৈরি করে এবং আপনি কীভাবে এটি ব্যবহার করেন কোনও ডিজাইন কীভাবে দেখায় এবং অনুভব করে তা পুরোপুরি রূপান্তর করতে পারে।

রঙ: রঙ স্কিটলসের একটি ব্যাগে রঙধনুর রংয়ের চেয়ে অনেক বেশি। রঙ প্রভাব। রঙ শক্তি। রঙ ড্রাইভের বাগদান। তবে আপনি এটি ব্যবহার করতে জানেন তবেই।

প্যাকেজিং ডিজাইন:

আপনার নকশাগুলির জন্য আপনি যে রঙগুলি চয়ন করেন তা কেবলমাত্র আপনার সামগ্রিক নান্দনিকতার জন্যই নয়, আপনার ডিজাইনগুলি আপনার শ্রোতার সাথে কীভাবে সংযুক্ত হয় (যা পরিণতিতে ফলাফলকে চালিত করে)

টাইপোগ্রাফি: আপনার নকশাগুলিতে আপনি যে শব্দগুলি ব্যবহার করছেন তা গুরুত্বপূর্ণ তবে সেই শব্দগুলি যোগাযোগ করার জন্য আপনি ব্যবহৃত ফন্টগুলিও।

জমিন: আপনার নকশাগুলিতে গভীরতা এবং মাত্রা যুক্ত করার জন্য টেক্সচার হ’ল একটি নিশ্চিত উপায়, যা তাদের আরও দৃষ্টি আকর্ষণীয় করে তোলে।

টেক্সচার গ্রাফিক ডিজাইনকে জীবিত মনে করে। জ্যাকোপ সেভেরিতানো, গ্রিনব্ল্যাট-ওয়েক্সলার এবং পাভেল নলবার্টের মাধ্যমে নকশাগুলি।

আপনি ব্যবসায়ের কার্ডের মতো মুদ্রিত টুকরোতে কোনও আসল 3 ডি উপাদান যুক্ত করুন বা ডিজাইনের মাধ্যমে মায়া তৈরি করুন, টেক্সচার আপনার নকশাগুলি আরও স্মরণীয় করে তুলেছে। তবে এটি সঠিক হওয়া খুব জটিল বিষয়। আপনি যদি টেক্সচারটি পেরেক না করেন তবে আপনার ডিজাইনটি ব্যস্ত বা অপ্রতিরোধ্য মনে হতে পারে এবং এটি আপনি যা যাচ্ছেন তা কখনও তা নয়।

 

ব্র্যান্ডিং: ব্র্যান্ডিং হ’ল আপনি কীভাবে আপনার ব্যবসা, পণ্য, পরিষেবা এবং গল্পকে প্রাণবন্ত করেন। তুমি এটা কিভাবে করলে? গ্রাফিক ডিজাইনের বেসিকগুলির সমস্তটি কাজে লাগিয়ে আমরা এমন একটি ব্র্যান্ড তৈরি করার জন্য এই গাইডটি কভার করেছি যাতে আপনি কে সত্য হন।

দুর্দান্ত নকশা সম্পর্কে “বেসিক” কিছুই বলার নেই। মানুষের কাজ দেখে আপনিই দুর্দান্ত নকশা তৈরি করে ফেলতে পারেন।

প্রিয় পাঠক, লেখাটা অত সহজবোধ্য হয় নি, কারণ অনেক ইংরেজি শব্দের সঠিক বাংলা লিখলে উল্টো হয়ে যায়।ব্র্যান্ডিং কে ব্র্যান্ডিংই লিখতে হয়। কি কআর করা।   এটাই! গ্রাফিক্স ডিজাইনের বেসিক। এগুলি বোঝার জন্য এখন আপনার প্রয়োজনীয় অনেক ধারণা ও উদাহারণ এখানে তুলে ধরার চেষ্টা করেছি। এই দৃঢ়় ভিত্তির সাহায্যে, যা করা বাকি রয়েছে তা এখানে থেকে বেরিয়ে এসে অবিশ্বাস্য ডিজাইন তৈরি করতে ব্যবহার করুন যা আপনার ব্র্যান্ডকে উজ্জ্বল করে তুলবে। এ লেখা থেকে সামান্য কিছু আপনি আইডিয়া পেলে কৃতজ্ঞ হব। ধন্যবাদ।

 

Leave A Reply

Your email address will not be published.