ফ্রিল্যান্সার আইডি কার্ড, পরিচয়পত্র(বাংলাদেশে)

ফ্রিল্যান্সিং সরকারি পরিচয়পত্র, অনলাইন ইনকাম

0

বাংলাদেশে যারা ফ্রিল্যান্সিং করছেন তাদের জন্য সাম্প্রতিক সুখবর হলো সরকার তাদের আইডি কার্ড দিয়ে নানাভাবে সুযোগ সুবিধা দিতে সম্মত হয়েছেন। অবশেষে বাংলাদেশের ফ্রিল্যান্সারদের আইডি(পরিচয়পত্র) সমস্যার সমাধান হল। বিশ্বের বিভিন্ন মার্কেটপ্লেসে ফ্রিল্যান্সারদের আইডেনটিটি ভেরিভিকেশন করার প্রয়োজন হয়। এত দিন বাংলাদেশি ফ্রিল্যান্সাররা তাদের পাসপোর্ট বা এনআইডি দিয়ে সে সমস্যার সমাধান করতেন।

বাংলাদেশ সরকাররের যোগাযোগ প্রযুক্তি মন্ত্রণালয় ফ্রিল্যান্সারদের জন্য পরিচিত কার্ড বা ফ্রিল্যান্সিং আইডি কার্ড দিচ্ছে। দেশের প্রায় সাড়ে ৬ লাখ ফ্রিল্যান্সার পরিচয়পত্র গ্রহণের সুযোগ পাচ্ছেন।

কর্মসংস্থান, উপার্জন বা দক্ষতার প্রমাণ হিসেবে ফ্রিল্যান্সিং কার্ডটি ব্যবহার করা যাবে। এ কার্ডের মাধ্যমে ব্যাংকে ও সরকারি অন্যান্য কাজে সহজে ব্যবহার করা যাবে।

বিদেশ থেকে রেমিটেন্স পাঠায় এসব প্রবাসীদের মত ফ্রিল্যান্সারদের মূল্যায়ন করা হবে। এতদিন ধরে অনেকেই ফ্রিল্যান্সিং কাজের মাধ্যমে আয় করে আসলেও  ফ্রিল্যান্সাররা তাঁদের পরিচয় নিয়ে সমস্যায় ছিলেন। বাংলাদেশ সরকার কর্তৃক পরিচয়পত্র প্রদানের মাধ্যমে এ সমস্যার  স্থায়ী সমাধান হল।

ফ্রিল্যান্সার আইডি কার্ড

ফ্রিল্যান্সার আইডি কার্ড পেতে কত টাকা খরচ ?

ফ্রিল্যান্সার আইডি কার্ড প্রদানের জন্য সরকার একটি ওয়েব পোর্টাল বানিয়েছে, যেখানে ফ্রিল্যান্সাররা নিজেদের নিবন্ধন সম্পন্ন করে মাত্র ১৫০০টাকা বিনিময়ে আইডি কার্ড সংগ্রহ করতে পারবেন। এতে ফ্রিল্যান্সারদের সামাজিক পরিচিতি তৈরির পাশাপাশি ব্যাংকঋণ পাবেন এবং তাঁদের সবধরনের আর্থিক লেনদেনে সহযোগিতা হবে।

ফ্রিল্যান্সিং জব সাইট বা মার্কেটপ্লেসে কাজ করার পর পাওয়া অর্থ উত্তোলনের বিষয় নিয়ে বাংলাদেশের নতুন ফ্রিল্যান্সাররা খুব চিন্তায় থাকেন।অনলাইনে ইনকাম কিভাবে দেশে আনবেন,ভাবনায় পড়েন।  ফ্রিল্যান্সার আইডি কার্ড প্রদান তাদের দুচিন্তা দূর করবে বলে আশা করা হচ্ছে।

আরো পড়ুন : ফ্রিল্যান্সিং করে নিজেই হোন নিজের বস

ফ্রিল্যান্সার আইডি কার্ড পেতে  কি কি লাগে ?

এই আইডি কার্ড পেতে নিবন্ধন করতে হলে  https://app.freelancers.gov.bd/signup সাইটে ক্লিক করে তথ্য দিতে হবে। এ ব্যাপারে বিস্তারিত তথ্য ‘লার্ন মোর’ অংশে ক্লিক করলে জানা যাবে। আবেদন করার জন্য ‘অ্যাপ্লাই নাউ’ অংশে ক্লিক করতে হবে। আইডি কার্ডের জন্য নির্ধারিত ফি ১৫০০টাকা বিকাশ, নগদে বা ব্যাংকের মাধ্যমেও প্রদান করা যাবে।

নিবন্ধন করতে এনআইডি কপি, ছবি আপলোড করতে হয়। জম্ম তারিখ, এনআইড নাম্বার লিখতে হয়। 

কার্ড পেতে নিবন্ধন করতে বেশ কয়েকটি প্রশ্নে উত্তর দিতে হবে। যেমন- আপনি কি? আপওয়ার্ক, টপটাল,পিপল পারআওয়ার, ৯৯ডিজাইন-আয় করছেন, গত এক বছরে কত আয় করেছেন-ডলার হিসেবে,  এর বাইরে অন্য কোন সোর্স হতে ফ্রিল্যান্সিং কাজ করে আয় করেছেন? করলে কত ডলার, আপনি কি কি কাজে দক্ষ, এ সব দক্ষতার প্রমাণে আপনার কোন সার্টিফিকেট আছে কি? আপনার প্রোফাইল বা ওয়েবসাইটের লিংক বসাতে বলা হবে। সহজ সরল ও সত্য উত্তর দেবেন।

ফ্রিল্যান্সার ডটকম এর মত মার্কেটপ্লেসগুলো এতদিন আইডেনটিটি ভেরিফিকেশন করার জন্য  পাসপোর্ট, ড্রাইভিং লাইসেন্স বা ন্যাশনাল আইডির কপি চাইতো। প্রতারণা, মানিলন্ডারিং বা সন্ত্রাসবাদে বা জঙ্গীবাদে অর্থ বিনিয়োগ বন্ধ করতে মার্কেটপ্লেসগুলো আইডি কার্ডের মাধ্যমে ফ্রিল্যান্সারদের প্রকৃত পরিচয় নিশ্চিত করার চেষ্টা করেন। তাছাড়া অনেক সময় কাজদাতা আইডি চান ও মার্কেটপ্লেসে যুক্ত হবার সময়েও আইডি কার্ডের প্রয়োজন পড়ে।   সরকার ফ্রিল্যান্সারদের আইডি কার্ড দেয়ার সিদ্ধান্ত নেয়ায় দেশে ফ্রিল্যান্সিং আয় তথা অনলাইনে আয়ও বেড়ে যাবে বলে আশা করা হচ্ছে।

ফ্রিল্যান্সার আইডি কার্ড পাবার যেগ্যতা আপনার আছে কি না যাচাই করতে ভিজিট করুন—–In order to obtain Freelancers ID card one must maintain following eligibility criteria

 

এই ফ্রিল্যান্সার আইডি কার্ড সংক্রান্ত কিছু সাধারণ প্রশ্নের উত্তর

 

প্রশ্ন – আমি কোনও মার্কেটপ্লেসে যেমন আপওয়ার্ক বা ফাইভারে কাজ করি না। আমি কি এখনও একটি ফ্রিল্যান্সার আইডি পেতে পারি?

 

 

উত্তর – হ্যাঁ আপনি পারেন। আপনার আয়ের এবং কর্মসংস্থানের একটি যাচাইযোগ্য উত্স হিসাবে / বিদেশী সত্তার সাথে চুক্তি যেখানে কাজ / পরিষেবা / পণ্য কার্যত সরবরাহ করা হয়, আপনি ফ্রিল্যান্সার আইডির জন্য আবেদন করতে পারেন।

 

প্রশ্ন – ফ্রিল্যান্সার আইডি থাকা কি কোনও ব্যাংক লোন বা ক্রেডিট কার্ডের নিশ্চয়তা দেয়?

 

এ – নং ফ্রিল্যান্সার আইডি হ’ল আপনার কর্মসংস্থান, আয় এবং দক্ষতার দক্ষতার প্রমাণ। আপনার আয়ের দক্ষতা এবং দক্ষতার স্তরটি creditণ পাওয়ার যোগ্যতার প্রত্যাশিত মান পর্যন্ত কিনা তা সম্পূর্ণভাবে প্রশ্নে পৃথক ব্যাংক বা আর্থিক প্রতিষ্ঠানের উপর নির্ভর করে। যে কোনও ব্যাঙ্ক কোনও ব্যক্তিকে creditণ দেওয়ার আগে তাদের নিজস্ব যথাযথ পরিশ্রম করবে।

 

প্রশ্ন – আমি একটি ফিজিক্যাল আইডি কার্ড পেতে পারি?

 

উত্তর – এখন পর্যন্ত কেবল ভার্চুয়াল আইডি কার্ডগুলি দেয়া হচ্ছে।

 

প্রশ্ন – ফ্রিল্যান্সারের পোর্টালের অন্যান্য বৈশিষ্ট্যগুলি অ্যাক্সেস করার জন্য আমার কী ফ্রিল্যান্সারের আইডি কার্ড থাকা দরকার?

 

এ – ফ্রিল্যান্সার্স পোর্টালে অনেক আকর্ষণীয় এবং দরকারী বৈশিষ্ট্য রয়েছে যেমন ভিডিও টিউটোরিয়ালস, মেন্টর মার্কেটপ্লেস, ফ্রিল্যান্সার ব্যাংকিং, ফ্রিল্যান্সার অফার ইত্যাদি . এই সমস্ত বৈশিষ্ট্য অ্যাক্সেস করার জন্য ফ্রিল্যান্সার আইডি থাকা প্রয়োজন হয় না। পোর্টালে অ্যাক্সেস করতে ইমেল বা ফোন নম্বর ব্যবহার করে যে কেউ সাইন আপ করতে পারে।

 

প্রশ্ন – আমার ব্যাংক কর্মসংস্থানের প্রমাণ হিসাবে আমার ফ্রিল্যান্সার আইডি গ্রহণ করছে না। আমি কি করতে পারি?

 

এ – সবার আগে ধৈর্য ধরুন, এটি একটি নতুন বৈশিষ্ট্য এবং সমস্ত ব্যাংক এবং তাদের কর্মচারীরা ফ্রিল্যান্সার আইডি কীভাবে কাজ করে তা সম্পর্কে জানতে পারে না। এ সম্পর্কে আরও জানতে আপনি তাদের ফ্রিল্যান্সারস.জিওভি.বিডি পোর্টালে দেখার জন্য বলে দেখতে পারেন।

 

দ্বিতীয়ত, আপনার নির্দিষ্ট ইস্যুটি সম্পর্কে আমাদের কাছে support@freelancers.gov.bd এ যোগাযোগ করুন এবং যে কোনও সমস্যা সমাধানের জন্য আমরা সরকারী চ্যানেলগুলির মাধ্যমে ব্যাংকের কাছে যোগাযোগ করব।

 

প্রশ্ন – আমি ফ্রিল্যান্সার নই তবে আমি কিছু প্রকল্পে ‘‘ ভাই ’’ এর জন্য কাজ করি, আমি কি ফ্রিল্যান্সার আইডি কার্ড পেতে পারি?

 

একটি – হ্যাঁ আপনি হতে পারে। এটি নির্ভর করবে আপনি যার অধীনে কাজ করেন তিনি কোনও ‘ফ্রিল্যান্সার টিমের মালিক’ হিসাবে আবেদন করেছেন কি না।

 

প্রশ্ন – আমি কেবল ফ্রিল্যান্সার হিসাবে কাজ শুরু করেছি, আমি কী একটি আইডি কার্ড পেতে পারি?

 

একটি – হ্যাঁ আপনি হতে পারে। আপনি যদি গত ১২ মাসে ১০০০ ডলারের বেশি আয় করেছেন তবে আপনি ফ্রিল্যান্সার আইডি কার্ডের জন্য আবেদন করতে পারেন।

 

প্রশ্ন – ফ্রিল্যান্সার আইডি কার্ডের বাস্তব জীবনের কিছু ব্যবহার কী?

 

এ – ফ্রিল্যান্সার আইডি কার্ড যে কোনও পরিস্থিতিতে আপনার কর্মসংস্থান এবং  অথবা আয়ের প্রমাণ উপস্থাপন করতে হবে এমন পরিস্থিতিতে কার্যকর হবে। উদাহরণস্বরূপ – কোনও ব্যাংকে লোন বা ক্রেডিট কার্ডের জন্য আবেদন করা, ভিসার জন্য আবেদন করা, বাড়ি বা অফিস ভাড়া নেওয়া, স্কুলে বাচ্চাদের ভর্তি করা, ক্লাব বা সমিতির সদস্য হওয়া, নতুন ব্যবসা প্রতিষ্ঠা ইত্যাদি।

 

প্রশ্ন – ফ্রিল্যান্সার আইডি জাতীয় আইডি প্রতিস্থাপন হিসাবে ব্যবহার করা যেতে পারে?

 

ক – না

 

প্রশ্ন – ফ্রিল্যান্সার আইডি কি ট্যাক্স ট্র্যাপ?

 

এ – জাতীয় রাজস্ব বোর্ডের প্রকাশনা অনুসারে ‘আয়কর সময়ে এক নজরে’ পৃষ্ঠা 26 – অনুচ্ছেদ 17 (II) (কে) যেখানে এটি স্পষ্টভাবে উল্লেখ করেছে ‘তথ্য প্রযুক্তি সক্ষমকৃত পরিষেবাদি (আইটিইএস) বা দেশব্যাপী টেলিযোগযোগ ট্রান্সমিশন নেটওয়ার্ক (এনটিটিএন) থেকে প্রাপ্ত আয় ) ব্যবসায় 30 জুন, 2024 অবধি অব্যাহতিপ্রাপ্ত; ‘; সুতরাং চিন্তা করবেন না, 2024 সাল পর্যন্ত কোনও ট্যাক্স ফ্রিল্যান্সারদের জন্য প্রযোজ্য হবে না।

 

এ লেখাটি ভাল লাগলে , লিংকের লেখাটিও পড়ার অনুরোধ করবো..ফ্রিল্যান্সিং ক্যারিয়ার, কিভাবে শিখবো, পূর্ণাঙ্গ গাইড লাইন

 

 

শেয়ার করতে ভুলবেন না।

 

Leave A Reply

Your email address will not be published.