আর্টিকেল,প্রবন্ধ, কন্টেন্ট লেখা

অনলাইনে আয় করতে যেভাবে আর্টিকেল/কন্টেন্ট লিখবেন

যে নিয়মগুলো অনুসরণ করলে আপনার পোস্ট ভাইরাল হবেই

ব্যাকরণ এবং বাক্যবিন্যাস, কিওয়ার্ড ঠিক রেখে যে কেউ একটি ভাল নিবন্ধ, আর্টিকেল/কন্টেন্ট লিখতে পারেন।  তবে, শিক্ষানবিশ ফ্রিল্যান্সার হিসেবে আপনাকে মনে রাখতে হবে,আপনার উদ্দেশ্য অনলাইনেআয় করা এবং সেই ইন্টারনেট ইনকামের ওপর আপনার জীবিকা নির্ভর করবে।  সে জন্য আপনাকে বাণিজ্যিক উদ্দেশ্য নিবন্ধ,আর্টিকেল/কন্টেন্টগুলো কীভাবে লিখতে হবে তা শিখতে হবে।

গ্রাহক বা এডিটর যেভাবে চায় ঠিক সেরকমই হতে হবে

আপনার লেখাগুলো দিয়ে আপনি নিজেকে ব্রান্ড হিসেবে পরিচিত করে তুলবেন।যত বেশি পরিচিতি পাবেন ততবেশি আপনার লেখার বিক্রয়মূল্য বৃদ্ধি পাবে।  সংবাদপত্রের জন্য সাধারণ  নিবন্ধ,আর্টিকেল/কন্টেন্ট লেখা এক রকম।কিন্ত কোন পণ্য বা প্রতিষ্ঠানের অনলাইনে প্রচার প্রসাসের জন্য এসইও ভিত্তিক লেখা তৈরি করা শতভাগ ব্যতিক্রম।

 

ম্যাগাজিন, সংবাদপত্র, বাণিজ্যিক ব্লগ এবং তথ্যমূলক ওয়েবসাইটগুলি সর্বদা নতুন(ইউনিক) মূল বিষয়বস্তুর জন্য মুখিয়ে থাকে।  ভাল নিবন্ধ লেখার গোপনীয়তা হল কোনও টুকরো লেখার আগে কীভাবে পরিকল্পনা এবং কাঠামো তৈরি করবেন তা বোঝা।  একটি সুগঠিত নিবন্ধ আপনাকে আপনার লেখার দক্ষতাকে ফুটিয়ে তুলবে।

পাঠকের নিকট আপনার সম্পর্কে ভাল ধারণার জন্ম দেবে।

লেখার কাঠামোটা হবে আপনি কি লিখতে চাচ্ছেন তা পাঠককে আপনার ধারণাগুলি সঠিকভাবে, সংক্ষিপ্তভাবে, স্পষ্টভাবে এবং সম্পূর্ণরূপে তুলে ধরতে হবে।  ভাল কাঠামোর মূল চাবিকাঠি হ’ল ভাল পরিকল্পনা।

আপনার প্রতিটি নিবন্ধে নিচের বিষয়গুলো অন্তর্ভুক্ত থাকা উচিত:

একটি উপযুক্ত শিরোনাম

একটি অত্যন্ত আকর্ষনীয় সূচনা অনুচ্ছেদ(ইনট্রো প্যারা)

মূল আলোচনা

একটি সমাপ্ত অনুচ্ছেদ(উপসংহার)

 

এবার নিচে উপরের বিষয়গুলো নিয়ে একটু বিস্তারিত আলোচনা করি।

একটি ভাল নিবন্ধ শিরোনামের শব্দ গাঁথুনি হতে হবে খুবই মজবুত অর্থপূর্ণ-বুলেট হেডিং

যেমন-জেনে রাখুন যেভাবে তৈরি করবেন ভাইরাল কন্টেন্ট।

 

নতুন লেখকরা প্রায়শই গুরুত্বপূর্ণ শিরোনাম কী তা উপেক্ষা করেন। তবে আপনাকে অবশ্যই তথ্যবহুল এবং আকর্ষণীয় করে এমন শিরোনাম তৈরি করতে হবে। এটি সম্পাদক প্রথম পড়েন।

আপনার নিবন্ধটি কী লক্ষ্য, কারা পাঠক এবং নিবন্ধটি যে প্রশ্নগুলির উত্তর দেবে প্রতিশ্রুতিবদ্ধ সে সম্পর্কে এক নজরে ইংগিত করবে শিরোনামটি।

আপনাকে লেখার সময় মনে রাখতে এবং বিশ্বাস করতে হবে যে,লেখাটি বিক্রি হচ্ছে। তার মাধ্যমে আপনি অনলাইনে আয় করতে যাচ্ছেন।  যিনি সম্পাদনা বা ক্রয় করবেন তিনি কিভাবে চান সেভাবে লেখাটা লিখে যেতে হবে।  ব্যতিক্রম হলে বা আপনার মনের মত করে লিখে গেলে আপনি কোন টাকাই পাবেন না।

 

একটি অনলাইন নিবন্ধের জন্য কীভাবে একটি শিরোনাম লিখবেন

আমি এই নিবন্ধটি অনলাইনে প্রকাশের জন্য লিখেছি। তার মানে বেশিরভাগ পাঠক এটি অনুসন্ধান ইঞ্জিনের মাধ্যমে আবিষ্কার করতে পারবেন।   আপনি যদি পাঠকদের আপনার নিবন্ধটি অনলাইনে সন্ধান করতে চান তবে সার্চ ইঞ্জিনে লোকেরা টাইপ করা কীওয়ার্ড নির্বাচন করা প্রয়োজনীয়। আপনি যদি ওয়েবের জন্য লিখছেন তবে আপনার শিরোনামে কমপক্ষে একটি কীওয়ার্ড অন্তর্ভুক্ত করা উচিত।

সুতরাং শিরোনাম কাঠামোতে জনপ্রিয় কীওয়ার্ডগুলি যেন থাকে।

অনেক সময় সম্পাদকরা মনগড়া শিরোনাম দিয়ে নতুনদের নানাভাবে চাপে ফেলেন।  তাদের স্প্যাম, সংবেদনশীলতা এবং অসততার সাথে যুক্তকরার চেষ্ঠা চালান।  লক্ষ্য থাকতে হবে কিছুটা ভাল করার।

সংক্ষেপে, একটি অনলাইন নিবন্ধের জন্য একটি ভাল শিরোনাম অন্তর্ভুক্ত করা উচিত:

যদিও অনেক সম্পাদক এখনও নিবন্ধের বিষয়বস্তু চিত্রিত করার জন্য একটি শিরোনাম পছন্দ করেন, মুদ্রণে অবহিত করার চেয়ে কৌতূহল বাড়াতে শিরোনামটি প্রায়শই গুরুত্বপূর্ণ।  শিরোনাম ঠিক করতে সময় নিন।  সর্বদা আপনার বাজার, বা প্রকাশকের নির্দেশিকা অধ্যয়ন করুন এবং সম্পাদকের পছন্দসই শৈলীতে মেনে চলুন। শিরোনাম সম্পর্কে একটি শেষ শব্দ: সম্পাদকদের তাদের পুনরায় লেখার জন্য বা প্রতিস্থাপনের জন্য প্রস্তুত করুন। এটা হয়। শিরোনামে চূড়ান্ত সিদ্ধান্ত হ’ল সম্পাদকের অগ্রগামী। তবে আপনার শিরোনাম মুদ্রণের পথে সন্ধান করে বা না, একটি ভাল শিরোনাম শিখতে শেখা নিবন্ধগুলি কীভাবে বিক্রি করতে হয় তা বোঝার প্রথম পদক্ষেপ।

আরো পড়ুন : বাংলা ও ইংরেজীতে আর্টিকেল লিখে ঘরে বসে অনলাইনে আয় করুন

শিরোনামকে কেন্দ্র করে কিওয়ার্ডসহ প্রথম অনুচ্ছেদ(প্যারাগ্রাফ) লিখবেন কীভাবে ?

প্রথম অনুচ্ছেদটি আপনার নিবন্ধের সর্বাধিক গুরুত্বপূর্ণ অংশ এবং প্রথম বাক্যটি অনুচ্ছেদের সর্বাধিক গুরুত্বপূর্ণ অংশ। প্রথম অনুচ্ছেদে অনেক কাজ করতে হবে। এটি করা উচিত:

পাঠকের মনোযোগ আকর্ষণ

শিরোনামে প্রতিশ্রুতি প্রয়োগ করুন

কৌতূহল জাগান

নিবন্ধের বাকী অংশ পড়তে পাঠকবে অনুপ্রাণিত করবে।

শিরোনাম কি হবে নোট রাখবেন। শিরোনাম ধরে লেখা বানানো যায়।

লেখার শুরুটা যদি ভাল না হয়, অযৌক্তিক, নিস্তেজ বা অপ্রাসঙ্গিক হলে আপনার ক্রেতা বা পাঠক বা যিনি সম্পাদক তিনি পড়ার আগ্রহ হারিয়ে ফেলবেন। বাকি নিবন্ধটি কতটা ভাল তা বিবেচ্য হবে না কারণ সম্পাদক এটি পড়বেন না। আপনার বাক্যগুলি সংক্ষিপ্ত রাখুন। পরিষ্কার, সুসংহত এবং সংক্ষিপ্ত হতে হবে। আপনি যা বলতে চান তা সম্পাদকের কাজ করা উচিত নয়।

মূলত: নিবন্ধ হতে হবে চমতকার আকর্ষনীয় সূচনা দিয়ে।। যাতে পাঠক পুরো লেখাটা পড়ার ইচ্ছা পোষন করেন।

এবার আসুন

কোনও নিবন্ধের মূল অংশটি কীভাবে লিখবেন

•        আপনি যখন আপনার নিবন্ধের মূল অংশটি লিখবেন, তখন আপনার লেখার প্রথম অনুচ্ছেদে আপনি যেমন করেছেন তেমন স্টাইলটি ব্যবহার করুন। একটি সংক্ষিপ্ত অংশে দেহে তিনটি হিসাবে অনুচ্ছেদ থাকতে পারে। একটি দীর্ঘ প্যারাগ্রাফ থেকে নিবন্ধে আপনি কয়েক ডজন প্যারাগ্রাফ  লিখতে পারেন। তবে প্রতিটি ক্ষেত্রেই এক অনুচ্ছেদ থেকে পরবর্তী অনুচ্ছেদে ধারণাগুলির ক্রম প্রবাহ(ধারাবাহিক বর্ণনা) অবশ্যই নির্বিঘ্ন হতে হবে।

•        প্রতিটি অনুচ্ছেদে একটি কেন্দ্রীয় ধারণা থাকা উচিত। ধারণাটি ব্যাখ্যা করুন এবং সত্যের সাথে এটি সমর্থন করুন। আপনার নিবন্ধের গতি পরিচালনা করতে অনুচ্ছেদের দৈর্ঘ্যের পরিমাণ পরিবর্তন করুন।

•        যা লিখছেন তা স্পষ্টভাবে লিখুন যাতে পাঠকের বুঝতে সমস্যা না হয়।

•        সংশ্লিষ্ট চিত্র, গ্রাফ, চার্ট যুক্ত করুন

•        শুধু লেখা আর লেখা হলে আপনার আর্টিকেল টি  পাঠকের মনযোগ হারাতে পারে।  তাই পোস্টের মধ্যে লেখা সম্পর্কিত ছবি, ভিডিও, চার্ট যুক্ত করুন। এটি আপনার আর্টিকেলের আকর্ষণ বৃদ্ধি করবে । বাড়াবে মনযোগ। মনে রাখবেন অনেক সময় কোনো বিষয় লেখনীর মাধ্যমে না বোঝানো গেলেও ছবির মাধ্যমে খুব সহজেই তুলে ধরা সম্ভব।

যে কারণে যে বিষয়ে নিবন্ধটি লেখা হয়েছে তার চাহিদা পরিপূর্ণভাবে তুলে ধরার জন্য নিবন্ধের দৈর্ঘ্যটি টেইলর করুন। যদি আপনার নিবন্ধটি প্রয়োজনীয় শব্দ গণনার চেয়ে কম হয়ে থাকে, তবে এটি অতিরিক্ত শব্দ দিয়ে বাড়ানো যেতে পারে।

•        লেখার মূল থিম তুলে ধরতে আরও তথ্য সন্ধান করুন।

•        সংক্ষেপে, প্রধান বডিটি অন্তর্ভুক্ত করা উচিত:

•        যৌক্তিক অনুক্রমের অনুচ্ছেদে একটি সিরিজ

•        প্রতিটি অনুচ্ছেদে একটি কেন্দ্রীয় ধারণা

•        তথ্য এবং সমর্থনকারী তথ্য এবং

 

কীভাবে একটি ভাল সমাপনী অনুচ্ছেদ বা উপসংহার লিখবেন?

একটি ভাল সমাপ্তি অনুচ্ছেদ প্রায়শই ছোট হয়। আপনার নিবন্ধটি গবেষণা এবং লেখার সময়, আপনি কী বলতে চান এবং এটি সম্পূর্ণ এবং স্পষ্টভাবে বলতে চাইছেন তার দিকে ফোকাস করুন। সমাপ্ত অনুচ্ছেদে নতুন তথ্য প্রবর্তন করবেন না। আপনি যদি নিজের কাজটি ভালভাবে করেন তবে আপনি যখন সিদ্ধান্তে পৌঁছেছেন তখন কিছু বলার দরকার নেই।

শেষ অনুচ্ছেদের সবচেয়ে সাধারণ স্টাইলগুলির মধ্যে তিনটি:

নিবন্ধটির একটি সংক্ষিপ্তসার

পাঠক একটি প্রশ্ন জিজ্ঞাসা

নিবন্ধ প্রশ্নের উত্তর

যদি আপনি একটি সংক্ষিপ্ত উপসংহার লিখেন তবে এটি সংক্ষিপ্ত এবং মিষ্টি রাখুন। তিনটি বাক্য প্রচুর পরিমাণে হওয়া উচিত।

আপনার প্রবন্ধটি শেষের দিকে পৌঁছানোর সাথে সাথে আপনার প্রবন্ধের উদ্বোধনী অনুচ্ছেদে উত্থাপিত প্রশ্নের উত্তর দেওয়া উচিত। তবে এটি একটি নতুন প্রশ্নের সাথে বন্ধ হওয়া কার্যকর যা এর আগে যা ঘটেছিল তার থেকে অনুসরণ করে।

মন্তব্য প্রাণবন্ত আলোচনাকে উত্সাহিত করতে এই কৌশলটি অনলাইনে ভাল কাজ করে। যদি আপনার নিবন্ধের মূল বিষয়টি যুক্তিসহকারে  তুলে ধরা হলেও  উত্থাপিত প্রশ্নের উত্তর এখনও না দেয় তবে সমাপনী অনুচ্ছেদটিতে তার উত্তর দেওয়া প্রয়োজন।

নিরিবিলি লেখার চেষ্ঠা করুন: সামনে ফোন,টিভি বা পাশে মেহমান বা বাচ্চা নিয়ে ভাল কিছু লেখা হয়ে উঠে না। কারণ তাতে মনযোগ বিঘ্নিত হয়।

 

আপনি আপনার নিবন্ধটি লেখার পরে কী করবেন

সাবধান! যখন আপনার নিবন্ধটি সম্পূর্ণ হবে, আপনি এটি দ্রুত জমা দিতে আগ্রহী হবেন।না।

এটি সম্ভবত আপনার সমস্ত কঠোর পরিশ্রমের পরেও নিবন্ধটি হস্তান্তরযোগ্য হয় নি।  বিক্রয়যোগ্য নিবন্ধগুলি কীভাবে লিখতে হয় তা শিখতে বার বার লেখাটা পড়ুন এবং সম্পাদনা করুন।

আপনার নিবন্ধটি একদিকে রাখুন এবং অন্য কিছুতে কাজ করুন। এটি পুনরায় পড়ার আগে বেশ কয়েক দিন রেখে দিন। তারপরে তিনবার পড়ুন।

ঘটনা পরীক্ষা করুন

প্রথমবার চেক করুন আপনার সমস্ত তথ্য সঠিক। মেমরির উপর নির্ভর করা ঝুঁকিপূর্ণ। যদি আপনার নিবন্ধে অন্য কোনও কাজের উদ্ধৃতি, সঠিক নাম এবং তারিখগুলি অন্তর্ভুক্ত থাকে তবে একাধিক উত্স ব্যবহার করে আপনার সত্যতা যাচাই করুন। যদি কোনও সম্পাদক কোনও নিবন্ধ ক্রয় করে এবং এটি বিভ্রান্তিকর বা ভুল হিসাবে খুঁজে পান তবে আপনি কখনই সেই প্রকাশনাতে আর কোনও নিবন্ধ বিক্রয় করার সুযোগ পাবেন না।

মনে রাখবেন, যতই পড়িবেন, ততই শুদ্ধ ও আকর্ষনীয় হবে আর্টিকেল:

 

আপনার নিবন্ধটি আবার পড়ুন এবং আবার সম্পাদনা করুন।

আপনার নিবন্ধটি বারবার পড়ুন। লাল কালি বা মুছুন কী ব্যবহার করুন এবং প্রতিটি অপ্রয়োজনীয় শব্দ বা বাক্যাংশ কেটে দিন।

 

 

আপনার নিবন্ধ এর বানান চেক/ প্রুপ রিড করুন:

 

তৃতীয়ধাপে, আপনার নিবন্ধটির বানান চেক  করুন যার অর্থ ভুলগুলির জন্য বানান এবং ব্যাকরণ পরীক্ষা করা। আমি আপনার নিবন্ধের একটি অনুলিপি প্রিন্ট করার বা প্রুফ রিডিংয়ের আগে আপনার ওয়ার্ড প্রসেসরে ফন্ট পরিবর্তন করার পরামর্শ দিচ্ছি। আপনি নিজের লেখা কোনও লেখায় ত্রুটিগুলি মিস করা সহজ। এর চেহারা পরিবর্তন করা আপনাকে তাজা চোখ দিয়ে এটি দেখতে সহায়তা করে।

সহকারী-সম্পাদকরা অবশিষ্ট সমস্যাগুলি সংশোধন করবেন, তবে এটি তাদের প্রথম দায়িত্ব নয়। একটি ফ্রিল্যান্স লেখক হিসাবে একটি সফল ক্যারিয়ার তৈরি করতে, আপনার কাজ নিয়ে গর্ব করুন এবং এটিকে আপনার সেরা সৃষ্ঠি হিসাবে তৈরি করুন।

এবার আপনার নিবন্ধটি আরও একবার চোখ বুলিয়ে নিন। পরের দিন এটি প্রকাশকের নির্দেশিকাগুলি মেনে চলেছে কিনা তা নিশ্চিত করতে আরও একটি পাস দিন, ভালভাবে পড়া হয়েছে, যৌক্তিক, স্পষ্ট এবং সম্পূর্ণ।

 

শুরুতে বলেছি আমার লেখার উদ্দেশ্য হল শিক্ষানবিশ ফ্রিল্যান্সারদের জন্য গাইড দেয়ার চেষ্ঠা করা।

 

সাধারণ লেখালেখি আর অনলাইনে আয় করার লক্ষ্যে কিভাবে আর্টিকেল/কন্টেন্ট লেখার মধ্যে যথেষ্ট পার্থক্য রয়েছে।

মনে রাখবেন যে,আপনি আর্টিকেল লিখছেন কোন পণ্য বা প্রতিষ্ঠানের প্রচার প্রসারের জন্য।

আর্টিকেল/কন্টেন্ট লিখতে এক নজরে খেয়াল রাখুন :

১.কী নিয়ে লিখছেন তা নিয়ে সে বিষয়ে আগে ভালভাবে পড়ুন।

২.  কী উদ্দেশ্যে লিখছেন আপনি? ভালভাবে তা জেনে নিন।

 

৩.  নিজের বা কোন প্রতিষ্ঠানের পণ্যের প্রচারের উদ্দেশ্যে লিখতে হলে, তাহলে সেই পণ্যটির ব্যাপারে আদ্যেপান্ত জেনে নিন।একই রকমের অন্য প্রতিষ্ঠানের পণ্যের তুলনামূলক চিত্র তুলে ধরে, প্রতিটি পণ্যের সুবিধা অসুবিধা তুলে ধরুন।মতামতে আপনার পণ্যটির গ্রহণ যোগ্যতা ও জনপ্রিয়তা একটু যে বেশিই তা তুলে ধরবেন।যাতে গ্রাহক কিনতে আগ্রহী হয়।

৪. লেখা শুরু করার আগেই ঠিক করে নিন, আপনার পাঠক কারা।তারা যাতে আপনার লেখা পড়ে সে ব্যাপারটি সবসময় মাথায় রাখুন।

৫. আপনার বিষয়টি নিয়ে  অন্যরা কী লিখেছে, কী তথ্য দিল,তা দেখে নিন।তারপর চেষ্টা করুন নতুন তথ্য দিতে।

৬. অনুচ্ছেদের নাম সাব হেড লাইন দিয়ে লিখুন।

৭. লেখা খুব ভালো মানের হলে আপনি নিজেই ব্রান্ড বনে যাবেন।অল্প সময়ে বিখ্যাত হবেন।দাম বাড়বে লেখার দিন দিন।আপনার লেখার জন্য অগ্রিম বৃকিং দিতে হবে গ্রাহককে।

৮. সঠিক বানান ব্যবহার করা, ব্যাকরণ বা গ্রামার ঠিক রাখা কর্তব্য।

৯. কারো লেখা কোথাও কপি পেস্ট করবেন না।প্রতিদিন যদি তা করতে থাকেন ধরা খেলে জামিন পাবেন না। গুগল আপনাকে কালো তালিকাভুক্ত করে দেবে।

১০. বেশি বেশি অর্গানিক ভিজিটর পেতে হলে কোন রকম কপি পেষ্ট, রিরাইট ছাড়া স্বতন্ত্র আর্টিকেল বা নিবন্ধ লিখতে হবে।তাহলে সার্চ ইঞ্জিনগুলো আপনার লেখাকে পাঠকদের সামনে তুলে ধরবে।

প্রফেসর আসহাব উদ্দিনের একটা কথা বার বার মনে পড়ে,’’ ভাল লেখক হতে হলে ভাল পাঠক হতে হবে।‘’ জানার জন্য বোঝার জন্য অনলাইনে আয় করতে হলে প্রয়োজনে একটা আর্টিকেল কে ১০০বার পড়তে হবে।  তবু যদি শেখা যায়।

আমি একজন নগন্য ফ্রিল্যান্সার।  আমার ক্ষুদ্রজ্ঞানে যতটুকু সম্ভব লেখালেখির বিষয়ে উপরে তুলে ধরলাম সেগুলো যদি আপনার কিছুটা উপকারে আসে নিজেকে ধন্য মনে করবো। অনুসরণ করতে পারলে আপনার কন্টেন্ট বা আর্টিকেল ধীরে ধীরে ভাইরাল হতে শুরু করবে।হেলাফেলাও নয়।

পড়তে ভুলবেন না : ১০০ ফ্রিল্যান্স জব সাইট।। আপনার পছন্দের কাজটি খুঁজে নিন

প্লিজ শেয়ার ও লাইক দেবেন যদি ভাল  লাগে।

Facebook Comments
Please follow and like us:
0

outsourcingway

Owner of MMI Media services | Social Media Marketing Advisor | Content and Review Writer। Political Analysis। Online Content Editor Sajia Alam is a post graduate in History. Basically he is a Online Journalist for world Current affairs and world Political news. But his love for social media turned him into a marketing professional and he began his journey as a social media marketer and content writer. He started MMI Media and Virtual Assistant services to the western Celebrities since 2009 through creating an effective social media strategy and content.

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *