ফ্রিল্যান্সিং ক্রমবর্ধমান বৃদ্ধি পাচ্ছে। সেই সাথে জনপ্রিয়তাও। ফ্রিল্যান্সারদের উপার্জনের অন্যতম সাধারণ পদ্ধতিতে পরিণত হয়েছে। কলেজ শিক্ষার্থী এবং অন্যান্য অনলাইন গীকরা তাদের অতিরিক্ত সময়ে কিছু অতিরিক্ত নগদ টাকা অনলাইনে আয় করতে ফ্রিল্যান্স প্রকল্পগুলি খুঁজে থাকেন।

ক্রমবর্ধমান জনপ্রিয়তার প্রধান কারণগুলির মধ্যে যখনই আপনি এবং যেখানেই চান কাজ করার ক্ষমতা সুযোগ রয়েছে।তবে আপনি যে কাজগুলো জানেন বা সহজে করতে পারেন তেমন প্রকল্পগুলি পাওয়া যতটা সহজ লাগে তত সহজ নয়,e সেখানে অনেক লোক আছেন যারা আপনার চেয়ে ভাল দক্ষতার অধিকারী। এজন্য আপনাকে এমন প্ল্যাটফর্মগুলিতে আবেদন করতে হবে যা ফ্রিল্যান্সারদের তাদের দক্ষতা এবং সম্ভাব্য ক্লায়েন্টদের কাজ পেতে পারেন।
একজন ফ্রিল্যান্সার হিসেবে কাজ খুঁজছেন?আপনি জানেন যে বিভিন্ন ফ্রিল্যান্সার সাইট থেকে আপনার পছন্দের কাজটি খুজে বের করা খুবই দুস্কর।একজন পেশাদার হিসেবে কাজ খুঁজে পেতে সহায়তা করে এমন ফ্রিল্যান্স ওয়েবসাইটও কিন্ত কম না। সেখানে রয়েছে নানা খুটিনাটি পরামর্শও।
এই নিবন্ধে, আমরা ইন্টারনেটে সেরা ফ্রিল্যান্স ওয়েবসাইটগুলির তালিকা করব।সেই সাথে তাদের সেবার সংক্ষিপ্ত বিবরণীও।এ সব সাইটগুলো ২০২০সালে জনপ্রিয় হিসেবে মার্কেটে তুমুল ব্যবসা করবে বলে আশা করা হচ্ছে।

ফ্রিল্যান্স ওয়েবসাইট বলতে কী বোঝায়?
ফ্রিল্যান্স ওয়েবসাইটগুলি প্ল্যাটফর্ম, যেখানে লোকেরা কাজের সন্ধান করে এবং নিয়োগকারীরা তাদের কাজ পোস্ট করে।
আপনার প্রতিভাকে বিকশিত করার একটি দুর্দান্ত উপায় হলো ফ্রিল্যান্সার হওয়া । আপনি যে প্রকল্পগুলি পছন্দ করেন বা আপনি যে কাজগুলো ভালভাবে করতে সক্ষম হন কেবলমাত্র সেই প্রকল্পগুলির জন্যই আবেদন করার স্বাধীনতা আপনার কাছে রয়েছে।

এখানে বলে রাখা প্রয়োজন যে, এই ফ্রিল্যান্সিং জব ওয়েবসাইটগুলো ব্যবহার করা আপনাকে আপনার ফ্রিল্যান্স ক্যারিয়ারের জন্য একটি শক্তিশালী সূচনা করতে সহায়তা করবে। তারা আপনাকে প্রথম ক্লায়েন্টগুলি সহজেই খুঁজে পেতে এবং পথে নিয়োগকর্তাদের বিশ্বাস অর্জনে সহায়তা করবে। এখানে কাজ করে আপনি বাড়াতে পারেন আপনার ফোর্টফলিও।
upwork

০১. আপওয়ার্ক : আপওয়ার্ক এখন বিশ্বের বৃহত্তম বাজারে পরিণত হয়েছে। বলা যায় বৃহত্তম ফ্রিল্যান্সিং জব সাইট।সাবেক ওডেস্ক ডটকম এবং এল্যান্স ডটকম এর মধ্যে একীকরণের ফলে এটি সম্ভব হয়েছে।এক সময় আমার ব্যক্তিগত প্রিয় জব সাইট ছিল ওডেস্ক । ইল্যান্সও কম নয়। বিশ্বের দুটি বৃহত্তম ফ্রিল্যান্স ওয়েবসাইট হাত মিলিয়ে ২০১৫ এর মাঝামাঝি আপওয়ার্ক.কম গঠনে একীভূত হয়ে ফ্রিল্যান্স.কমের জন্য একটি বড় প্রতিযোগী তৈরি হয়েছে। অনেকে ওই দুটি প্রতিষ্টানের একত্রিকরনের সিদ্ধান্তের বিরোধিতা করেছিল।কিন্ত কোন লাভ হয় নি। বরং আপওয়ার্ক এখনও চাকরি সন্ধান এবং ফ্রিল্যান্সারদের নিয়োগের জন্য একই খুবই ভাল ওয়েবসাইট।
fiverr

০২. ফাইভার: ছোট পরিষেবাগুলির জন্য এটিকে বিশ্বের বৃহত্তম বাজার বলা যায়। সবচেয়ে আকর্ষণীয় অংশটি হ’ল আপনি মাত্র ৫ডলারে জিগস( gigs) তৈরি করতে পারবেন। কোডিং বা ডিজাইনের কোন কিছু না জানলেও আপনি অনলাইনে এখানে আয় করতে পারবেন। অন্যরা যে জিগগুলি তৈরি করছে তা একবার দেখুন এবং দেখুন যে আপনি এটিও করতে পারেন কিনা। যদি আপনি খুব স্বাভাবিক কিছু করতে পারেন যে লোকেরা তার জন্য কমপক্ষে ৫ডলার দিতে আগ্রহী তখন আপনি এখানে একটি উল্লেখযোগ্য পরিমাণে অর্থ উপার্জন করতে পারেন।
আরও কী, ফাইভার আপনার দক্ষতা বিকাশ করতে এবং ক্লায়েন্টদের কাছ থেকে কিভাবে কাজ নেবেন তা শেখানোর জন্য আপনাকে বিনা খরচে শিক্ষণ কোর্স দিয়ে সহায়তা করে থাকে।

০৩.Toptal.com

Toptal.com

টপটাল অভিজ্ঞ সফটওয়্যার বিকাশকারীদের জন্য দুর্দান্ত। আপনি যদি নবীন ফ্রিল্যান্সার প্রতিযোগি হন তাহলে একজন টপটালে কাজ পাওয়া বা তালিকা ভুক্ত হওয়া অনেক কঠিন কাজ।এখানে তালিকাভুক্ত হয়ে ইন্টারনেট ইনকাম করা সহজ যদি না আপনি একবার তালিকাভুক্ত হতে পারেন।আপনি যদি নিজের দক্ষতা বৃদ্ধিতে যথেষ্ট পরিশ্রম করেন তবে অবশ্যই আপনি তাদের একজন হতে পারেন।

যদি আপনি আপনার স্টার্টআপ বা অন্য কোনও উচ্চ-মানের প্রকল্পের জন্য একটি উচ্চ দক্ষ বিকাশকারী খুঁজে থাকেন, আমি আপনাকে দৃঢ়ভাবে পরামর্শ দিচ্ছি যে আপনি টপটাল থেকে আপনার প্রয়োজনীয় ফ্রিল্যান্সার কে নিয়োগ করুন।
ওয়েবে আমি খুঁজে পাওয়া এটি সর্বাধিক প্রিমিয়াম ফ্রিল্যান্সার নেটওয়ার্ক। ছেলেরা, এখানে অত্যন্ত প্রতিভাবান রয়েছে এবং সাধারণত অন্যান্য সাইটের তুলনায় অনেক বেশি অনলাইনে ইনকাম করা যায় এখানে।

০৪.PeoplePerHour
PeoplePerHour

এই সাইটটি এমন লোকদেরকে একত্রিত করেছে যারা লিখিত, ওয়েব বিকাশ, ডিজাইনিং, সোশ্যাল মিডিয়া, ব্যবসায়িক বিকাশ ইত্যাদির সাথে সম্পর্কিত পরিষেবাগুলি অনুসন্ধান বা অফার করছে । এটি যুক্তরাজ্য ভিত্তিক একটি সংস্থা যা অন্যান্য ফ্রিল্যান্সিং সাইটের মতোই একটি সিস্টেম অনুসরণ করে। এই সাইটে আপনি অনলাইন এবং পাশাপাশি অনলাইনে ফ্রিল্যান্সিং জিগগুলি খুঁজে পাবেন। এখানে কাজ পাওয়া যায় নির্ধারিত দাম বা প্রতি ঘন্টা হিসেবে।

৫. ফ্রিল্যান্সার ডটকম:

freelancer.com logo

এটি হল অনেক পুরাতন ফ্রিল্যান্সার জব সাইট।২০০৩ সালে প্রতিষ্ঠিত হবার পরে, এটি এখন বিশ্বের বৃহত্তম আউটসোর্সিং মার্কেটপ্লেসে পরিণত হয়েছে। এটি সম্প্রতি ফ্রিল্যান্সিং মার্কেটপ্লেসে দুটি বড় জায়ান্ট ভি ওয়ার্কার এবং স্ক্রিপ্টল্যান্স কে সংযুক্ত করেছে। যা আগের চেয়ে অনেক বেশি সেবা ও কর্মসংস্থানের সুযোগ দিচ্ছে।

আপনি যদি কোনও জায়গা শুরু করার সন্ধান করে থাকেন তবে ফ্রিল্যান্সার আপনার জন্য সেরা জায়গা। ফ্রিল্যান্সার বা নিয়োগকর্তা হিসাবে সাইন আপ করা এবং উপার্জন বা নিয়োগ শুরু করা সহজ। আমি সবসময় নবীন ফ্রিল্যান্সারদের এবং এমনকি পেশাদার ফ্রিল্যান্সারদের পরামর্শ দিচ্ছি যারা ফ্রিল্যান্সার ডটকম এ যোগদানের জন্য অন্যান্য ফ্রিল্যান্স সাইটগুলিতে কাজ করেন। আমার কাছে ফ্রিল্যান্সার ডটকম কে অনেক প্রিয় মনে হয়।

যে ১২ফ্রিল্যান্সিংয়ের ১২ কাজের চাহিদা বেশি বিশ্বে 

ফ্রিল্যান্সিংয়ের ১২ কাজের চাহিদা তুঙ্গে হলেও অনলাইনে আজকাল সবধরনের কাজের অফার পাওয়া যায়।অস্ট্রেলিয়া, যুক্তরাজ্য এবং মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের মতো বিদেশী বাজারে যে সমস্ত কাজের চাহিদা রয়েছে তা নীচে তালিকাভুক্ত করা হলো। এ সব দেশ থেকে অনলাইয়ে ইনটারনেট ইনকাম কিন্ত সব চেয়ে বেশি।

১. ওয়েব এবং মোবাইল বিকাশ
২. ইন্টারনেট সার্চ
৩. ডেটা এন্ট্রি
৪. ওয়েব ডিজাইনিং
৫. অ্যাকাউন্টিং
৬. গ্রাফিক্স ডিজাইন
৭. পরামর্শ(কনসালটেন্সি)
৮. নিয়োগকারী( Recruiter)
৯. বিষয়বস্তু লেখক(কনটেন্ট রাইটিং)
১০. সম্পাদনা(এডিটিং)
১১. অ্যাপ মেকার(বিভিন্ন পণ্য,প্রতিষ্ঠান, মিডিয়া, ব্যাংকের নিকট আজকাল খুব প্রয়োজনীয় বিষয় হলো অ্যাপ।যার চাহিদা অনেক বেশি বাজারে।কেবল অ্যাপ বিক্রি করে মাসে আপনি লাখ টাকা অনলাইনে ও অফলাইনে আয় করতে পারেন।
১২. কনটেন্ট রাইটিং

তাছাড়া মার্কেটপ্লেসগুলোতে আরও কিছু ফ্রিল্যান্সিং কাজের চাহিদা রয়েছে
যেমন:
ক)সামাজিক মিডিয়া পেজ পরিচালনা: একটি ব্যবসায়ের সামাজিক মিডিয়া পৃষ্ঠাগুলি পরিচালনা করা।
খ) সাইবার সুরক্ষা : যেখানে ফ্রিল্যান্সাররা ই-কমার্স ওয়েবসাইটগুলির সুরক্ষায় কাজ করা
গ) ইভেন্ট ম্যানেজমেন্ট: শব্দটি সংকেত হিসাবে, সংস্থাগুলি এবং ব্যক্তিদের জন্য ইভেন্টগুলি পরিচালনা করে।
ঘ) পর্যটন গাইড: আপনার দেশে আসা বিদেশী ভ্রমণকারীর জন্য গাইড লাইন দিতে পারেন।সাথে বেড়াতেও পারেন।
ঙ) বিশেষত্বের শেফ: যারা রান্নার বিভিন্ন কৌশল নিয়ে লেখালেখি করেন এমন ফ্রিল্যান্সারদের খুব চাহিদা থাকে বেসরকারি টিভি চ্যানেলগুলোর কাছে।হোটেল মোটেলগুলোর খাবারের উৎসব সরাসরি প্রচারের জন্য তাদের খুব ডাক পড়ে।
চ) সাংবাদিক: ফ্রিল্যান্স সাংবাদিকতা প্রায় দুই শতাব্দী ধরে বিদ্যমান এবং সর্বদা এর চাহিদা রয়েছে।
ছ) ভার্চুয়াল সহকারী: আরেকটি দুর্দান্ত ফ্রিল্যান্স দক্ষতা যা সর্বদা চাহিদা থাকে। অগণিত কর্মের জন্য ভার্চুয়াল সহকারীগুলির প্রয়োজন হয় বিভিন্ন গুরুত্বপূর্ণ ব্যক্তিদের।

উপসংহার:
ফ্রিল্যান্সিং সাইটগুলোতে উপরের ১১টি বিষয়ের কাজের চাহিদা সর্বাধিক।আগামী ৪/৫বছর এসব কাজের ডিমান্ড থাকবে বেশি বিশ্বব্যাপি।
তবে ই-কমার্স এবং কৃত্রিম বুদ্ধিমত্তার প্রতিযোগিতা বৃদ্ধি পেলে উপরোক্ত কাজের চাহিদা হয়তো সামান্য কমতে পারে।মানুষের মধ্যে আরও নানা দক্ষতার উদ্ভব ঘটতে পারে।

আরও দ্রুতগতির ইন্টারনেট এবং অনেক কম মূল্যে আগামী দিনে পাওয়া যাবে বলে আশা করছে বিশ্ব।কারণ দিন দিন প্রযুক্তির উদ্ধাবন বাড়ছে।
সব সময় একটা বিষয় নোট রাখবেন এ মুহুর্তে বাজারে কোন কোন কাজের চাহিদা সবচেয়ে বেশি।পাশাপাশি কোন কোন কাজের বিনিময়ে ইন্টারনেট ইনকাম বেশি পাওয়া যায়।সে অনুযায়ি নিজেকে সব সময় দক্ষতার দিকে আপডেট রাখতে হবে। একজন সফল ফ্রিল্যান্সারের সেটাই বৈশিষ্ট্য হওয়া উচিত।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here